রামগঞ্জে কন্যাশিশুকে রক্ষায় জীবন দিল মা

যেকোনো মানুষের জীবনের বাবা মা এর ভূমিকা অনস্বীকার্য। মা এর ভালোবাসা এর মধ্যে কোনো ভেজাল নেই, নেই কোনো মলিনতা যেকোনো পরিস্থিতি হোক না কেন মায়েরা সবসময় তাদের সবকিছু বিলিয়ে দেয় সন্তানকে রক্ষায়। এমনকি বিলিয়ে দিতে পারেন নিজের জীবনও। লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে এমনই এক “মা” কে পিটিয়ে হত্যা করলো তার পাষণ্ড স্বামী।

স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে সবুজ (২৮) নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে রামগঞ্জ থানা পুলিশ। গতকাল গভীর রাতে উপজেলার পৌরশহরস্থ জোড়কবর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এঘটনায় নিহত গৃহবধূর বোন রোজিনা আক্তার বাদী হয়ে রামগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

জানা যায়, গত তিন মাস আগে উপজেলার বাঁশঘর নোয়াবাড়ীর স্বামী পরিত্যাক্তা লাকী আক্তার (২৫)কে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করে  নরিংপুর ইয়াছিন মজুমদার বাড়ির দুলালের ছেলে সবুজ। বিয়ের সময় লাকীর পাঁচ বছরের একটি মেয়ে ছিল। বিয়ের পর মেয়েটি তার মায়ের সাথে থাকতো কিন্তু তা পছন্দ করতো না সবুজ।তাই বিভিন্ন সময় সবুজ ও লাকীর মাঝে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকতো। এরই জের ধরে ৮ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে স্ত্রীকে মারধর করতে থাকে পাষণ্ড স্বামী সবুজ। একপর্যায়ে স্ত্রী লাকী আক্তার অচেতন হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক লাকী আক্তারকে মৃত ঘোষণা করে। কিন্তু চতুর স্বামী শশুর বাড়িতে গিয়ে লাকী অসুস্থ বলে জানায়। তখন ঐ গৃহবধূর মাকে সাথে নিয়ে রামগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিলে প্রতিমধ্যে ঘাতক স্বামী সবুজকে আটক করে পুলিশ।

নিহতের বোন রোজিনা আক্তার ও খুকি আক্তার জানায়, বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় লাকীর পাঁচ বছরের মেয়ে সাদিয়াকে নিয়ে লাকীকে মারধর করতো তার স্বামী সবুজ। আমাদের বোনকে পিটিয়ে হত্যা করেছে সবুজ। আমরা সবুজের ফাঁসি চাই।

এব্যাপারে রামগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, এব্যাপারে থানায় একটি হত্যা মামলা করেছে নিহতের স্বজনরা। প্রাথমিক সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য গৃহবধূর মরদেহ লক্ষ্মীপুর মর্গে পাঠানো হয়েছে ও আসামী সবুজকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

বার্তা প্রেরক
মিজানুর রহমার
রামগঞ্জ(লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন