মালয়েশিয়ায় আসছে ‘ই-ওয়েজেস’, অভিবাসীদের বেতন না দিলে জানবে সরকার

অসাধু নিয়োগকর্তাদের হাত থেকে অভিবাসীদের রক্ষা করতে মালয়েশিয়া সরকার নানা পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে। সরকার চায় না তাদের দেশে কর্মরত অভিবাসী শ্রমিকদের ডাম্পিং গ্রাউন্ড হয়ে উঠুক। সরকার নিশ্চিত করতে চায় প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কর্মচারীকে মজুরি দেওয়া হচ্ছে’।

মালয়েশিয়ার মানব সম্পদমন্ত্রী দাতুক এম সারাভানান সম্প্রতি সাংবাদিকদের এসব বলেছেন। সারাভানান বলেন, সরকার একটি ‘ই-ওয়েজস’ ব্যবস্থা চালু করতে চাচ্ছে যা নিয়োগকর্তারা যদি তাদের শ্রমিকদের বেতন না দেয় তবে মন্ত্রণালয়কে সতর্ক করবে।

বিদেশি শ্রমিক সুরক্ষার আরেকটি রূপ যা সরকার প্রবর্তন করবে তা হলো শ্রমিকদের ন্যূনতম মান আবাসন ও সুযোগ-সুবিধির আইনের ৪৪৬ ধারা কার্যকর করা। নিয়োগকর্তা আবাসন এবং তাদের শ্রমিকদের কল্যাণ বিষয়টি নিশ্চিত করতে ১ সেপ্টেম্বর থেকে এটি প্রয়োগ করা হবে।

‘যদি কোনো নিয়োগকর্তা এগুলি সরবরাহ না করে তবে প্রতিটি অপরাধের জন্য তারা সর্বোচ্চ ৫০,০০০ রিঙ্গিত জরিমানা গুনতে হবে। প্রতিটি বিদেশি কর্মীকে সামাজিক সুরক্ষা সংস্থার (সোকসো) অধীনে সুরক্ষা দেওয়ার প্রস্তাব মন্ত্রণালয় করবে’।

গারাভানান বলেন, ‘কোভিড- ১৯ মহামারির কারণে আমরা দেখেছি কেন আমাদের বিদেশিকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ। আন্তর্জাতিক মানে সমস্ত শ্রমিক, স্থানীয় বা বিদেশি নির্বিশেষে সমান চিকিতৎসা দেওয়া হয়। মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের সাথে বৈঠককালে এসব ব্যবস্থা নিয়েও আলোচনা হয়েছে’।

মন্ত্রী বলেন, মে মাস পর্যন্ত ব্যবসায়িক সুরক্ষা ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের (ডিওএসএইচ) নিবন্ধিত সক্রিয় এইচএসও সংখ্যা ছিল ৪ হজার ৯৫৩ জন। ‘এটি ডিও এসএইচতে নিবন্ধিত মোট যোগ্য ব্যক্তির মাত্র ৭.৫ শতাংশ, যা ৬৬ হাজার ২৬২ জন। সুতরাং, বর্তমান পরিস্থিতির কারণে এটিকে জরুরিভাবে উন্নত করা দরকার। বর্তমানে ডিও এসএইচ ৪৯ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং ৬৫৩ প্রশিক্ষককে স্বীকৃতি দেয় যা শিক্ষার সমস্ত স্তরে এইচএসও কোর্স পরিচালনা করে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়েছি, কিছু অসাধু নিয়োগকর্তা তাদের কর্মীদের সরকারের কাছ থেকে প্রাপ্ত ভর্তুকি দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। ‘অনুমোদিত আবেদনকারীদের নাম এবং এই নিয়োগকারীদের দেওয়া অর্থগুলি সামাজিক সুরক্ষা সংস্থা (সোকসো) ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত হয়। শ্রমিকরা যদি তাদের কর্তাব্যক্তিদের সাথে অসন্তুষ্ট হন তবে তারা অভিযোগ দায়ের করতে সক্ষম হবেন’।

‘আমরা যদি কোনো অভিযোগ পাই তবে মন্ত্রণালয় তদন্ত করে সোকসোর মাধ্যমে ব্যবস্থা নেবে সংশ্লিষ্ট বিভাগ। কোভিড-১৯ এর কারণে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত কর্মীদের মজুরি ভর্তুকি কর্মসূচি চালু করা হয়েছিল।

সারাভানান বলছিলেন, এখন পর্যন্ত সরকার এই কর্মসূচির জন্য ১৩.৮ বিলয়ন রিঙ্গিত বরাদ্দ করেছে সরকার। ৩০ শে জুন পর্যন্ত, এই কর্মসূচির জন্য বরাদ্দের প্রায় ৩৮ শতাংশ বা ৫.২ বিলয়ন রিঙ্গিত সোকসো দ্বারা যোগ্য নিয়োগকারীদের বিতরণ করা হয়েছে।

‘এই বরাদ্দটিতে ২ মিলিয়ন শ্রমিকের জন্য ৩১,০০০ নিয়োগকর্তা সম্পৃক্ত করা হয়েছে। বরাদ্দ প্রাপ্তি সবচেয়ে বড় খাতটি সেবা শিল্পের ছিল, মোট আবেদনের ৯২,০০০ বা ২৯ শতাংশ। সামাজিক সুরক্ষা সংস্থা সোকসো জানিয়েছে, ৩০ হাজারেরও বেশি নিয়োগকর্তা মজুরি ভর্তুকি প্রকল্পের জন্য আবেদন করেন’।

১ মন্তব্য

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন